News

    প্রবাসীদের জন্য দেশে বিনিয়োগের আকর্ষণীয় সুযোগ

    Published on Oct 28 2014
    border

    [অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড এর পক্ষে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী জনাব এম এ মান্নান হতে  পুরস্কার গ্রহণ করেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও জনাব মোহম্মদ শামস্-উল ইসলাম]


     



    বাংলাদেশিরা বিদেশে গিয়ে পড়ালেখা, চাকরি বা ব্যবসা যা- করছেন না কেন, দেশে স্বজনদের জন্য প্রায় সবাই টাকা পাঠান। সেই টাকা ছেলেমেয়ের/ভাই বোনদের পড়াশোনা, অথবা চিকিৎসা ব্যয় কিংবা সাংসারিক কাজেই খরচ হচ্ছে। যাঁরা একটু বেশি টাকা পাঠাতে পারছেন, তাঁদের কেউ কেউ সুন্দর বাড়িঘরও তৈরি করছেন কষ্টার্জিত টাকায়।


    কিন্তু যাঁরা একটু ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করেন এবং যাঁরা একটু হিসাবিসেসব প্রবাসী বাংলাদেশির জন্য ভালোই বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি করে রেখেছে বাংলাদেশ সরকার। বাংলাদেশ সঞ্চয় অধিদপ্তরের চালু করা পাঁচ বছর মেয়াদিওয়েজ আর্নার ডেভেলপমেন্ট বন্ড’, তিন বৎসর মেয়াদীইউএস ডলার ইনভেষ্টমেন্ট বন্ড’ এবং ’ইউএস ডলার প্রিমিয়াম বন্ড’ নামের ভিন্ন বন্ডে বিনিয়োগর চমৎকার সুযোগ রয়েছে। অন্য কোনো সঞ্চয়পত্র বা বন্ডে এত মুনাফা এখন পাওয়া যায় না। সবচাইতে আকর্ষণীয় দিক হ’ল বিনিয়োগ মেয়াদান্তে আপনি চাইলে দেশ হতে ফিরিয়ে আনতে পারেন।


    বন্ড সমুহের চমৎকার দিকগুলো:


    ওয়েজ আর্নার ডেভেলপমেন্ট বন্ড এর ক্ষেত্রে মুনাফার ১২%প্রত্যেক বছরে ষান্মাসিকভিত্তিতে মুনাফা উত্তোলন করতে পারবেন। তবে ষান্মাসিক ভিত্তিতে মুনাফা উত্তোলিত না হলে, মেয়াদপূর্তিতে মুল অংকের সাথে ষান্মাসিক ভিত্তিতে ১২% চক্রবৃদ্ধি হারে উক্ত মুনাফা প্রদেয় হবেএতে মুনাফার হার হয় ১৫.০৯%।


    বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশীওয়েজ আর্নার\' নিজ নামে অথবা; আবেদনপত্রে উল্লিখিত তার মনোনীত ব্যক্তির নামে অথবা প্রেরিত বৈদেশিক মুদ্রার বেনিফিসিয়ারী-এর নামে বন্ড ক্রয় করা যায়; বিদেশে লিয়েনে কর্মরত বাংলাদেশী সরকারী, সংবিধিবদ্ধ সংস্থা, স্বায়ত্বশাসিত আধা স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ; বিদেশে বাংলাদেশী দূতাবাসে কর্মরত বাংলাদেশ সরকারের কর্মকর্তা কর্মচারী, যারা বৈদেশিক মুদ্রায় বেতন-ভাতাদি পেয়ে থাকেন, তারা বন্ড ক্রয় করতে পারবেনকোন বেনিফিসিয়ারী ওয়েজ আর্নারের নিকট হতে প্রাপ্ত রেমিট্যান্সের বিপরীতে দালিলিক প্রমানাদি উপস্থাপন সাপেক্ষে বন্ড ক্রয় করতে পারেন;


    মেয়াদ শেষে মূল অর্থ দেশে টাকায় অথবা সমমূল্য বৈদেশিক মুদ্রায় বিদেশে প্রদান করা যাবে। উল্লেখ্য, ধারক কর্তৃক নির্ধারিত নমিনীও উক্ত সুবিধা প্রাপ্য হবেন।


    অন্যান্য ইস্যু অফিসের পাশাপাশি বাংলাদেশী ব্যাংকসমূহের বিদেশে কার্যরত এক্সচেঞ্জ কোম্পানীর মাধ্যমেও বন্ড ক্রয় করা যাবে।


    বন্ড ক্রয়ের জন্য পাসপোর্ট এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংশ্লিষ্ট বাংলাদেশ দুতাবাস হতে সত্যায়ন করার পরিবর্তে প্রবাসী বাংলাদেশীগণ কেবল তাদের পাসপোর্টের কপি প্রদান করে এবং বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত বিদেশী পাসপোর্টধারী নাগরিকগণNo Visa Requiredসীল সম্বলিত পাসপোর্টের কপি প্রদান করে বন্ড ক্রয় করতে পারবেন।


    ক্রয়কৃত বন্ড ব্যাংকে জামানত রেখে দেশে ঋণ গ্রহণের সুবিধা রয়েছে।


    ইউ.এস.ডলার প্রিমিয়াম বন্ড এর ক্ষেত্রে মূল অর্থ ডলারে বিদেশে ফেরত নেয়া যায়। মেয়াদান্তে মুনাফা .%


    ইউ.এস. ডলার ইনভেস্টমেন্ট বন্ড এর ক্ষেত্রে মূল অর্থ এবং মুনাফা ডলারে বিদেশে ফেরত নেওয়া যায়। মেয়াদান্তে মুনাফা .%


    বন্ডে কেউ আট কোটি টাকা বা এর বেশি পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করলে তাঁকে বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি (সিআইপি) ঘোষণা করে সরকার।


    কেনার কয়েক দিন পরই ওই বন্ড-ধারক মারা গেলেন। তাঁর মনোনীত ব্যক্তিকে (নমিনি) তখন মোট মুনাফার ৪০ থেকে ৫০ শতাংশসহ পুরো টাকা দেওয়া হবে।তবে মৃত্যুঝুঁকি-সুবিধায় সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত দেওয়া হয়। আবার ওয়েজ আর্নারের বয়সও হতে হয় ৫৫ বছরের নিচে। মৃত্যু ঝুঁকি সুবিধাটি নিতে গেলে মারা যাওয়ার ছয় মাসের মধ্যে আবেদন করতে হয়।


    বন্ডটি কিনতেডিবি-নামের নির্দিষ্ট ফরম পূরণ করে আবেদন করতে হয়। এর সঙ্গে দাখিল করতে হয় প্রবাসী আয় (রেমিট্যান্স) দেশে পাঠানোর দালিলিক প্রমাণাদি। পরিশোধ করতে হয় নগদ বৈদেশিক মুদ্রা বা রেমিট্যান্স হিসেবে পাওয়া বৈদেশিক মুদ্রা থেকে রূপান্তরিত বাংলাদেশি টাকা।


    বিনিয়োগের অঙ্ক অর্জিত মুনাফাপুরো অর্থই বাংলাদেশে আয়করমুক্ত।


    এতে বিনিয়োগের কোনো ঊর্ধ্বসীমাও নেই।


    প্রবাসীদের উৎসাহিত করে বৈধপথে রেমিট্যান্স আহরণ বাড়ানোর উদ্যোগের অংশ হিসেবে সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক চতুর্থবারের মতো ৩৫ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ড দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এই বিনিয়োগে আপনিও পেতে পারেন এ সম্মাননা।


    বিভিন্ন ক্যাটাগরির মধ্যে রাষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংক সমহের মধ্যে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড উপর্যুপরী ৪র্থ বারের মত সেরা রেমিট্যান্স আহরণকারী এবং বাংলাদেশের সকল ব্যাংকের মধ্যে ২য় সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স আহরণকারী ব্যাংকের পুরস্কার লাভ করে।


    তাছাড়া ব্যক্তিগত রেমিট্যান্স প্রেরণে দক্ষ ক্যাট্যাগরীতে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড এর বোরহানউদ্দীন শাখা, ভোলার একজন গ্রাহক এবং অদক্ষ ক্যাট্যগরীতে অত্র ব্যাংকের সাবসিডিয়ারীঅগ্রণী এক্সচেঞ্জ হাউজ (প্রাঃ) লিমিটেড, সিংগাপুরএর মাধ্যমে ব্যাংকের হাসাড়া বাজার শাখা,মুন্সীগঞ্জ এর অর্থ প্রেরণকারী একজন গ্রাহক পুরস্কার লাভ করেন।


    বাইরে আমরা যারাই থাকি না কেন দেশের প্রতি সবরাই একটা আলাদা টান রয়েছে। আমাদের দেশ সম্পর্কে যার যত নেতিবাচক ধারনাই থাকনা কেন সম্প্রতি বহির্বিশ্বে আমাদের ভাবমূর্তি অনেকটাই উজ্জ্বল। অর্থণীতির বিভিন্ন সূচকে আমরা আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ সমুহ হতে অনেক এগিয়ে আছি। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু নির্মান তাহাই প্রমান করে। তা সম্ভব হয়েছে কেবলই বৈধ পথে আপনার প্রেরিত রেমিটেন্স এর কারনে।


     


    সুতরাং নিজের/দেশের স্বার্থে ভেবে চিন্তে এসব আকর্ষণীয় বন্ডসমুহে বিনিয়োগ করুন।


     


    মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম


    সিইও, অগ্রণী রেমিটেন্স হাউজ কানাডা ইনক


    মোবাইল: 416-473-5390


    Email: ceo.arhci@agranibank.org